জীবনে এমন কত বিচ্ছেদ, কত মৃত্যু আছে, ফিরিয়া লাভ কি? পৃথিবীতে কে কাহার…

ফেসবুক ব্যবহারকারীদের মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশই বাস করেন ‘এয়ারব্রাশ রিয়্যালিটি’তে। যার আভিধানিক অর্থ বাস্তবের চেয়ে বহুগুণ বেশি সুন্দর এক কাল্পনিক জগতে। শুধু তাই নয়, সমীক্ষা বলছে ‘অ্যাক্টিভ ফেসবুক ইউজার’রা ভাবেন- তাদের জীবন আর পাঁচটা সাধারণ মানুষের চেয়ে বেশি আকর্ষণীয়।
আর এতেই টনক নড়েছে মনস্তত্ত্ববিদদের। তারা এখন বলছেন, অন্যদের থেকে আমাদের জীবন বেশি সুন্দর-এই ভাবনাই ইউজারদের ‘ডিজিটাল অ্যামনেশিয়া’য় ভোগাচ্ছে। একজন ফেসবুক ইউজারের নিজস্ব জগৎ তৈরি হচ্ছে। বাস্তবে কী হচ্ছে তা ভুলে গিয়ে নিজেরা যেভাবে কোনও ঘটনাকে অন্যের সামনে তুলে ধরছেন ফেসবুকে, সেটাই আসলে ঘটেছে ভাবছেন।
সমীক্ষা বলছে, ফেসবুক-ট্যুইটারে মানুষ যে কোনও ঘটনাকে ‘রিরাইট’ করছেন। অর্থাৎ কোনও ‘স্মৃতি’কে নিজের মনের মতন বদলাতে পারছেন। তৈরি করছেন নিজের একটি অনলাইন ইমেজ। আর সেই ইমেজের সঙ্গে বাস্তব না মিললেই তৈরি হচ্ছে প্যারানয়া, দুঃখ, অবসাদ।
সমীক্ষা এও বলছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক ‘শো-অফ’ করায় একজন মানুষের ব্যক্তিসত্তায় ধস নামছে। সোসাইটি ফর নিউরোসাইকোঅ্যানালিসিসের ডাক্তার রিচার্ড শেরি বলছেন, জীবনের সুন্দর মুহূর্তগুলিকে ধরে রাখতে চাওয়ার প্রবণতা চিরন্তন। কিন্তু সমীক্ষা বলছে, নিজের মতো করে মুহূর্তকে অন্যের সামনে পেশ করার প্রবণতা ধ্বংসাত্মক। এতে সত্যিকারের ঘটনার সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ায় তুলে ধরা ঘটনার অনেকসময়ই মিল থাকছে না। ফলে বাস্তবের স্মৃতি আর সোশ্যাল সাইটে দেখানো ঘটনা এক হচ্ছে না। আর এতেই ডিপ্রেশনে ভুগছেন ইউজাররা।
পেনকারেজ নামে এক সমীক্ষাকারী সংস্থার তথ্য বলছে, প্রতি ১০০ জনের মধ্যে ৬৮ জন মানুষই সোশ্যাল মিডিয়ায় রঙ চড়িয়ে নিজের সম্পর্কে কিছু জানাচ্ছেন বা কোনও ঘটনার ডকুমেন্টেশন করছেন। এর কারণও বড় অদ্ভুত। অন্যদের তুলনায় আমি যেন পিছিয়ে না পড়ি-এই মনোভাব থেকেই নিজের সম্পর্কে রঙ চড়িয়ে অনেক কিছু লেখেন ফেসবুক ইউজাররা। তাদের যেন অন্যেরা বোরিং না ভেবে ফেলে-এই ‘ভয়’ তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে ইউজারদের। পাশাপাশি রয়েছে ঈর্ষাও।
গবেষকরা বলছেন, আমাদের স্মৃতিকে যদি একটি হার্ড ডিস্কের মতো ভাবি, তাহলে আমরা সেই হার্ড ডিস্ক থেকে বাস্তবিক তথ্যগুলিকে ধীরে ধীরে মুছে ফেলছি। আমাদের উচিত বাস্তব জীবনে যা হয়েছে তা মনে রাখা এবং সেই সুন্দর মুহুর্তগুলিকে উপভোগ করা। এই ভাবা নয়, যে আমার জীবন কেন অন্যদের তুলনায় উৎকৃষ্ট নয়।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: