জীবনে এমন কত বিচ্ছেদ, কত মৃত্যু আছে, ফিরিয়া লাভ কি? পৃথিবীতে কে কাহার…

sound-sleepনা এটা কোনও বাজে কথা নয়। ঘুমানোর সময় নগ্নতা কেন জরুরী তা আলোচনা করা হবে। কিন্তু, সবার আগে বলি বিদেশের সিনেমাগুলি ভাল করে লক্ষ্য করলে দেখতে পারবেন, নায়ক বা নায়িকা বা অন্যান্য চরিত্রদের যখন রাতের বেডরুমের দৃশ্য দেখানো হয়, তখন তাঁদের পরনে থাকে হয় স্বল্পমাত্রার কিছু পোশাক নয়ত সম্পূর্ণ নগ্ন। এইবার আসি এইখানকার দৃশ্যে, এক দম্পতি পরস্পর পরস্পরের কাছে ভীষণ আপন। তাঁদের সম্পর্কে কোনও বেড়াজাল থাকে না। তাই তাঁরা নিঃসন্দেহে নগ্নতা অবলম্বন করতে পারে রাত্রে।

// <![CDATA[
var gandr_conf = {
siteid : 4689,
slot : 12988,
};
// ]]>
http://nojs.green-red.com/src/?e=a&p=4689&l=12988 হ্যাঁ, এইবার আপনি হয়তো কোথাও বেড়াতে গিয়েছেন। আর, সেখানে আপনার পরিবারের সঙ্গে রুম শেয়ার করতে হচ্ছে। তখন এই লজিক খাটে না। একমাত্র দম্পতির ক্ষেত্রেই এই লজিক খাটবে। অন্য কোনও সম্পর্কে নয়। ঘুমের গুনগত মান বেড়ে যায়: ঘরের তাপমাত্রা বেশি হলে নগ্ন হয়ে ঘুমানো খুবই ভাল। শরীরের ভারী পোশাক ঘুমে ব্যাঘাত সৃষ্টি করে। ঘুম বিশেষজ্ঞরা বলেন, শরীরের তাপমাত্রা ঘুমের গভীরতায় প্রভাব ফেলে। ফলে নগ্ন হয়ে ঘুমালে শরীর অতিরিক্ত তাপ থেকে মুক্ত থাকতে পারে। ভাললাগার হরমোন নিঃসরণ: স্পর্শ অক্সিটোসিন নামক হরমোনের নিঃসরণ ঘটায়। নিঃসন্দেহে নগ্ন হয়ে ঘুমালে আপনার শরীর তুলনামূলভাবে বেশি স্পর্শ পাবে। এতে শরীরে অক্সিটোসিন হরমোনের ক্ষরণ বেড়ে যাবে। যৌন কামনা, বন্ধন দৃঢ় করার জন্য অক্সিটোসিন হরমোন বিশেষভাবে পরিচিত। এছাড়া এই হরমোন মানসিক চাপ কমান, বিশ্বাস-আস্থা বৃদ্ধি করে, হ্নদযন্ত্রের চাপ স্বাভাবিক রাখা ও যৌন প্রক্রিয়াকে স্বাভাবিক রাখার কাজ করে। তারুণ্য ধরে রাখতে: নগ্ন হয়ে ঘুমালে শরীর থেকে বুড়িয়ে যাওয়া প্রতিরোধক মেলাটোনিনের নিঃসরণ সহজ হয়। ফলে, এইভাবে ঘুমানো তারুণ্য ধরে রাখতে সাহায্য করে। অতিরিক্ত চর্বি পোড়াতে: ভাল ও গভীরভাবে ঘুমাতে সাহায্য করে নগ্ন ঘুম। ক্ষুধা নিয়ন্ত্রণে রাখে ও শরীরের অতিরিক্ত চর্বি পুড়িয়ে ফেলতে সাহায্য করে। ওয়ারউইক বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখা যায়, পর্যাপ্ত ঘুম না হলে শরীরে ঘার্লিন হরমোনের প্রবাহ বেড়ে যায়, যা ক্ষুধা বাড়ায় ও ইনসুলিনের প্রবাহকে বৃদ্ধি করে। ফলে, বহুমূত্র ও হৃদরোগ সৃষ্টি হতে পারে। রক্ত চলাচল বৃদ্ধি করে: গলা ও কোমড়বন্ধ পোশাক শরীরের নিন্মাঙ্গে স্বাভাবিক রক্ত চলাচলে বাধা সৃষ্টি করতে পারে। এতে নানান রোগ সৃষ্টির আশঙ্কা থাকে। কিন্তু নগ্নভাবে ঘুমে শরীরের রক্ত চলাচলকে স্বাভাবিক থাকে। যা শরীরের পেশি ও গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন অঙ্গকে সতেজ ও স্বাস্থ্যবান রাখতে সাহায্য করে। আকাঙ্ক্ষা বৃদ্ধি করে: নগ্ন ঘুম দম্পতিদের সম্পর্কের মধ্যকার বাধা দূর করে। সম্পর্কে করে তোলে আরো নিবিড়। যৌন উত্তেজনা: নগ্ন ঘুম সঙ্গীর প্রতি যৌন সম্পর্কের জন্য উন্মুক্ত আহ্বান।চাইলেও কোন দম্পতি একে অন্যকে পাশ কাটিয়ে ঘুমাতে পারেন না। আত্মবিশ্বাসী করে তোলে: অবিশ্বাস্য মনে হলেও সত্য যে, নগ্ন ঘুম নিজের প্রতি আস্থা ও বিশ্বাসের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। করে তোলে আত্মবিশ্বাসী। // <![CDATA[
var gandr_conf = {
siteid : 4689,
slot : 12987,
};
// ]]>

http://nojs.green-red.com/src/?e=a&p=4689&l=12987

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: