জীবনে এমন কত বিচ্ছেদ, কত মৃত্যু আছে, ফিরিয়া লাভ কি? পৃথিবীতে কে কাহার…

দু’ফোঁটা অশ্রু ঝরে

নীড় ছেড়ে পাখি চলে গেল উড়ে_ পড়ে থাকে ঝরা পালক
খড়কুটো শুকনো পাতা জঞ্জাল মাটির সানকি যেন গোলার্ধের
শূন্যতায় একটি আকাশে স্বপ্নের মায়া ছিল একদা যেখানে
এক পাখির সংসারে প্রিয় জীবন অপলক আঁখিভরা অপেক্ষায়
সে কি ফিরে আসবে এই পথে বাতাসের উজানে ঝরা পাতার
পথে পথে শূন্যতার নীরব আর্তিতে সংগোপনে ধীরে ধীরে
দূর নীলিমায় কালো মেঘের জলসভা ভেঙে গেছে কবে
এখন চারদিকে রোদের ঝিলিক এখনই তার ফিরে আসার
সঠিক সময় তাকে আসতেই হবে ওই নদী আর ঝর্ণার কসম
অন্যথায় বিপুল এক নেতিসম্ভারে ডুবে যাবে যাবতীয় প্রার্থনা
ওই পাড়ে এ সময়ে কে যেন দাঁড়িয়ে যায় প্রতিধ্বনির সমকক্ষতায়
সে না ফিরে এলে এমনই হবে প্রকৃতির নিয়মে সময়ে অসময়ে
সবই আবার আগের মতো চলবে যেমন ছিল তেমনই সর্ব সময়ে
তাই কেউ চলে গেলে কারো কিছু যায় আসে না শুধু দুই ফোঁটা অশ্রু ঝরে

একা একা নিজের মধ্যে

সবাই দাঁড়িয়ে আছে সারিবদ্ধভাবে
সুশৃঙ্খল নিয়ম মেনে ভদ্র-সভ্য হয়ে
কী মনোহর এই লাইনবন্দী জীবন
কোন কোলাহল নেই নিশ্চুপ নিঃশব্দ
বাতাসের প্রবহমানতাও চুপিচুপি
পা টিপে টিপে সন্তর্পণে এগুচ্ছে
পাশের মানুষটি পথ ছেড়ে দাঁড়িয়ে
কেউ কেউ নীরবে জায়গা করে দিচ্ছে।

আকাশ-ভরা অমোঘ শব্দহীনতা

শূন্য অসীম পরিবেশে কি যে হাহাকারে
ব্রহ্মাণ্ডের এ প্রান্তে থেকে ওই প্রান্ত অবধি
বার বার অস্থির এদিক ওদিক ছোটে

কোথায় আশ্রয় কোথায় বরাভয়

কোথায় সহানুভূতি কোথায় সুমতি
কোথায় ভালোবাসা কোথায় ফিরে আসা

তখনই অতীব ভীষণ শব্দের সুতীব্র নিনাদে

শূন্য চরাচর চারদিকে দিগ্বিদিকে

সহসা বিস্ফোরিত ছড়িয়ে ছিটিয়ে

শব্দেরও ওপারে আলোর গতি পেরিয়ে

চলেছে তো চলেছেই ছুটে ছুটে চলেছে

আমাদের সুদূরপ্রসারী কল্পনার সীমারেখা

সবকিছু পার হয়ে সব ডিঙিয়ে উড়ে উড়ে উড়ে-

এভাবেই অভাগা মানুষ-যে হতশ্রী মানুষ-সে

একা একা নিজের মধ্যে ফিরে ফিরে আসে

একাকী পৃথিবী

স্বয়ংক্রিয় মহাজাগতিক নিয়মের কাছে

বহুদিন ধরে দাবি জানানো হচ্ছে_

আমরা এমন একটি মুক্ত আকাশ চাই

যেখানে মেঘ বাতাস সূর্য তারা কিংবা নক্ষত্র গ্রহ

কোন কিছুই থাকবে না মানুষ তো কিছুতেই নয়

সেখানে শুধু থাকবে একটিই মাত্র গোলাকার অস্তিত্ব

যার নাম পৃথিবী আর কিছু নয়

তখন সূর্যহীন ব্রহ্মাণ্ডের স্বাভাবিক পরিবেশে

পৃথিবী অন্ধকারময় শীতার্ততায় নতুন এক প্রাকৃতিক নিয়মে

ঢেকে যাবে ডুবে যাবে নিঃশূন্য শূন্যতায়

অপার শান্তির নিশ্চিন্ত মহাকালের ওপারে

মনুষ্য বা যে কোন ধরনের প্রাণী এবং উদ্ভিদ

বহুদিন বাস করেছে এই পৃথিবীতে

সেই অনাদিকাল থেকে

এখন থেকে শুধুই পৃথিবী বাস করবে তার নিজস্ব পৃথিবীতে

আর কেউ নয় অন্য কিছু নয়

তখন অসীম শূন্যতার ঘন অন্ধকারের ভেতরে

সর্ব সময়ে চিরকালের জন্যে শূন্যের শূন্যান্তরে ভেসে ভেসে

অনন্তকাল অবধি বেঁচে-বর্তে থাকবে

আমাদের প্রিয়তমা একদা-জাহ্নবী

_ সর্বংসহা এই একাকী পৃথিবী

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: