জীবনে এমন কত বিচ্ছেদ, কত মৃত্যু আছে, ফিরিয়া লাভ কি? পৃথিবীতে কে কাহার…

পপসম্রাট মাইকেল জ্যাকসন মৃত্যুর শেষদিনও নোবেলজয়ী বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতা পড়েছিলেন। এছাড়া অস্কারবিজয়ী ভারতের জনপ্রিয় সঙ্গীতস্রষ্টা এআর রহমানের সঙ্গে কাজ করার পরিকল্পনা করেছিলেন বলে জানা গেছে।

মাইকেল তার নতুন অ্যালবামে দু’জনে মিলে একটি সুর সৃষ্টির পরিকল্পনা করেন। বলা হচ্ছেÑ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতা পড়ার মাধ্যমে জ্যাকসন ভারতের সঙ্গে একটি বিশেষ সম্পর্ক উন্নয়নের চেষ্টা করছিলেন। কনট্যাক্ট মিউজিক ডট কমের এক রিপোর্টে এ তথ্য জানা যায়। এদিকে একজন বিচারক সোমবার মাইকেল জ্যাকসনের মাকে নেভারল্যান্ড রেঞ্চ ও বিটলস গ্র“পের গাওয়া গানগুলোর স্বত্ত্বাধিকারসহ তার সম্পত্তির সাময়িক তত্ত্বাবধায়ক মনোনীত করেছেন। আইএএনএস

অস্কার পুরস্কার পাওয়ার পর এআর রহমান মাইকেলের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তখন মাইকেল জ্যাকসন এআর রহমানকে একটি যৌথ সুর সৃষ্টির জন্য বলেছিলেন, যেখানে ভারতীয় অনুভূতি থাকবে। মাইকেল এর আগে আদনান সামির সঙ্গে কাজ করেছেন। সেখানে সারেঙ্গি, তবলা এবং ঢোলকের মতো ভারতীয় বাদ্যযন্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে। এআর রহমানের এক ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়, মাইকেলের ভাই জারমেইন ভারতীয় সঙ্গীতের রহস্য উšে§াচন করার জন্য বলতেন। জারমাইনের স্ত্রী হালিমা কিছু দিন ভারতের চন্ডিগড়ে বসবাস করেছিলেন। জ্যাকসন গত বছর গোপনে হিন্দু ধর্মের বিষয়ে লেখাপড়া করেছেন বলে জানা যায়। কীভাবে মেডিটেশন করতে হয় তা শিখেছিলেন। তিনি নিরামিষভোজীও ছিলেন। মাদার তেরেসার মৃত্যুর আগে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করার বিষয়ে মাইকেল উদ্বিগ্ন ছিলেন। ভারতের সব জিনিসের সঙ্গে পরিচিত হতে তার অনেক আগ্রহ ছিলো বলে জানান বিশ্ব হিন্দুত্ববাদ সোসাইটির প্রেসিডেন্ট রজান জেদ।

মাইকেল জ্যাকসন মৃত্যুর আগে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন। তিনি প্রতিমাসে তার ওষুধ ক্রয়ের জন্য ৩০ হাজার পাউন্ড বা ৫০ হাজার ডলার ব্যয় করতেন। তার ওষুধের মধ্যে বেশিরভাগই ছিলো মাদক জাতীয় বেদনানাশক, পেশী নমনীয় এবং হতাশা থেকে মুক্তি পাওয়ার ওষুধ। তাই অনেকের মতে মৃত্যুর আগে মাইকেল পাহাড় সমান ওষুধ সেবন করেছেন। কারণ মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি মানসিক চাপে ভুগেছেন। লস এঞ্জেলেস প্রধান আদালতের বিচারক মিচেল বেকলফ বলেন, আরো আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের লক্ষ্যে ৬ জুলাই শুনানি না হওয়া পর্যন্ত জ্যাকসনের সম্পত্তির নিয়ন্ত্রণে থাকবেন ক্যাথরিন জ্যাকসন। বিচারক এর আগে জ্যাকসনের তিন সন্তানকেও ক্যাথরিনের হেফাজতে দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার তাদের বাবা মারা যাওয়ার পর থেকে ক্যাথরিন তাদের দেখাশোনা করছেন। জ্যাকসন একটি উইল রেখে গেছেন বলে পরস্পরবিরোধী খবর পাওয়া গেছে। জ্যাকসন পরিবার আদালতে কোনো উইল উপস্থাপন করেনি। জ্যাকসনের অনেক আইনজীবীদের মধ্যে অন্তত একজন বলেছেন, একটি উইল রয়েছে।

http://www.amadershomoy.com/content/2009/07/01/news0280.htm

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: