জীবনে এমন কত বিচ্ছেদ, কত মৃত্যু আছে, ফিরিয়া লাভ কি? পৃথিবীতে কে কাহার…

দক্ষিণ এশিয়া এমনকি এশিয়ার অনেক দেশের তুলনায় প্রবাসী বাংলাদেশীরা দেশে তাদের আÍীয়-স্বজনদের সঙ্গে টেলিফোনে দীর্ঘ সময় ধরে কথা বলেন এবং এ খাতে অর্থ ব্যয়ও করেন বেশি। এমনকি প্রবাসী বাংলাদেশীরা অন্যদের তুলনায় টাকাও পাঠান বেশি।
রোববার স্থানীয় একটি হোটেলে আয়োজিত এক সেমিনারে এ জরিপের তথ্য প্রথমবারের মতো প্রকাশ করেন লার্ন এশিয়ার চেয়ারম্যান ড. রোহন সমরজিভ।
তিনি বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশীরা (যার বেশিরভাগ থাকেন মধ্যপ্রাচ্যে) প্রতি মাসে তাদের পরিবারের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলতে ব্যয় করেন গড়ে ৪৮ মার্কিন ডলার (প্রায় ৩৩শ’ টাকা)। অথচ প্রবাসী ভারতীয়, পাকিস্তানি, শ্রীলংকান বা ফিলিপিনোরা দেশে তাদের পরিবারের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলতে ব্যয় করেন মাত্র ১০ থেকে ২০ ডলার। এসব দেশের অভিবাসীর তুলনায় বাংলাদেশী প্রবাসীরা টেলিফোনে কথা বলতে ব্যয় করেন তিনগুণ। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশীরা দেশে অন্যদের তুলনায় দীর্ঘ সময় ধরে কথা বলেন। ৬০ শতাংশ বাংলাদেশী প্রতি মাসে গড়ে ৪৬ থেকে ৬০ মিনিট পরিবারের সঙ্গে কথা বলেন, যা অন্যান্য দেশের প্রবাসীদের তুলনায় অনেক বেশি। দেশে টাকা পাঠানোর ক্ষেত্রেও বাংলাদেশীরা এগিয়ে। বিদেশে বাংলাদেশীরা গড়ে প্রতি মাসে আয় করেন ৪৮৫ ডলার। যার মধ্যে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন ২০৩ ডলার। অথচ পাকিস্তানিরা বাড়িতে পাঠান মাসে ১৯৮ ডলার এবং ভারতীয়রা পাঠান ১৮২ ডলার। এর মধ্যে ৯০ শতাংশ টাকা পাঠানো হয় ব্যাংকের মাধ্যমে।
লার্ন এশিয়া তিন বছর ধরে থাইল্যান্ড, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, শ্রীলংকা, ফিলিপাইন এবং ভারতের ওপর টেলিফোন ব্যবহার এবং টাকা পাঠানোর মাধ্যম নিয়ে এ জরিপ করেছে। শুধু প্রবাসী বাংলাদেশী নয়, গ্রাম থেকে শহরে আসা (ঢাকা বা চট্টগ্রামের মতো বড় বড় শহরে) মানুষের ওপরও এ জরিপ চালানো হয়েছে। ২০০৮ সালের শেষের দিকে দেড় হাজার প্রবাসী, বিদেশ ফেরত ১৮০ এবং গ্রাম থেকে আসা ১৭০ জন বাংলাদেশীর ওপর এ জরিপ চালানো হয়। মোট ১২টি ভাষায় জরিপটি হয়েছে।
ড. রোহন সমরজিভ বলেছেন, বাংলাদেশের অভ্যন্তরে অনেকে মোবাইলের মাধ্যমে তার পরিবারের কাছে টাকা পাঠান। কিন্তু বিদেশ থেকে প্রবাসীরা এ সুবিধায় টাকা পাঠাতে পারছেন না। অথচ ফিলিপিনসসহ বিভিন্ন দেশে এ সুযোগ আছে। তিনি আরও বলেন, দুঃখজনক হলেও সত্য, বাংলাদেশের ৫৪ শতাংশ পরিবারে এখনও কোন টেলিফোন নেই। আর যেসব টেলিফোন সুবিধা আছে তার ৯০ শতাংশ হচ্ছে মোবাইলের মাধ্যমে।
সরকারের হিসাব অনুযায়ী ৬ দশমিক ৩ মিলিয়ন বাংলাদেশী বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাস করেন। এ বছর তারা দেশে ৯০০ কোটি ডলার রেমিটেন্স পাঠাবেন বলে আশা করা হচ্ছে। সেমিনারে মোবাইল অপারেটর কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: