জীবনে এমন কত বিচ্ছেদ, কত মৃত্যু আছে, ফিরিয়া লাভ কি? পৃথিবীতে কে কাহার…

সম্ভাবনাময় বিকল্প জ্বালানির গুরুত্ব তুলে ধরতে এক সুইস অভিযাত্রী সৌরবিমানে পৃথিবী পরিভ্রমণের পরিকল্পনা করেছেন। অভিযাত্রীর নাম বারট্রান্ড পিকার্ড। তিনি শুক্রবার তার পরিকল্পনার কথা গণমাধ্যমকে জানান। উড়োজাহাজটির মূল নমুনায় জাম্বো জেটের মতো লম্বা দুটি ডানা থাকলেও এর ওজন একটি পারিবারিক কারের মতোই। উড়োজাহাজটি চারটি বৈদ্যুতিক মোটরের মাধ্যমে চলবে। এর নকশা এমনভাবে করা হয়েছে যাতে বিমানটির উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ব্যাটারিগুলো ২৪ হাজার সৌর সেলের মাধ্যমে দিনে ও রাতে চলার মতো বাড়তি সৌরশক্তি সঞ্চয় করে রাখবে।

জুরিখের কাছে ডুবেনডর্ফ এয়ার ফিল্ডে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে পিকার্ড বলেন, গতকাল এটা ছিল স্বপ্ন। কিন্তু আজ এটা একটা জলজ্যান্ত বিমান। আর আগামীকালই এটা হতে যাচ্ছে নবায়নযোগ্য জ্বালানি দূত।

তিনি আরো বলেন, যদি একটি বিমান কোনও জ্বালানি ছাড়াই শুধু সৌরশক্তির সাহায্যে প্রপেলার ঘুরিয়ে দিনে-রাতে উড়তে পারে, তবে কেউই আর এমন দাবি করতে পারবে না যে, একই ঘটনা যানবাহন, এয়ার কন্ডিশন এবং কম্পিউটার চালানোর ক্ষেত্রে অসম্ভব। ১৯৯৯ সালেও পিকার্ড ইতিহাস গড়েন গ্যাস বেলুনে চড়ে কোথাও না থেমে পুরো পৃথিবী পরিভ্রমণ করে। তিনি আশা করছেন, পরীক্ষামূলকভাবে এ বছরের শেষদিকে তিনি তার সৌরবিমানে রাতের উড়ান শেষ করবেন। তারপর তিনি এ বিমানে চড়ে পুরো সুইজারল্যান্ড পরিভ্রমণ করবেন ২০১০ সালে।

৫০ জন ইঞ্জিনিয়ার ও টেকনিশিয়ান ৬ বছর ঘাম ঝরিয়ে সৌরবিমানটি তৈরি করেছেন। এর পেছনে অর্থ ঢেলেছে ডয়েশ ব্যাংক, ঘড়ি নির্মাতা ওমেগার মতো বড় বড় কোম্পানি। এ প্রকল্পে ৭০ মিলিয়ন ইউরো খরচ হয়েছে।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: