জীবনে এমন কত বিচ্ছেদ, কত মৃত্যু আছে, ফিরিয়া লাভ কি? পৃথিবীতে কে কাহার…

বাংলাদেশ নিয়ে রাইখম্যানের বই
মাইকেল রাইখম্যান সেই অল্পসংখ্যক সাদা চামড়ার ফটোগ্রাফারদের একজন যারা বাংলাদেশে এসে ছবি তোলার সময় সযতেœ এ দেশের দারিদ্র্যের বিষয়টি এড়িয়ে গেছেন। তার বদলে তুলে এনেছেন এ দেশের প্রকৃতির নিটোল চেহারা। ক্যামেরা অ্যান্ড ফটোগ্রাফি পাতার পাঠকদের কাছে নামটি পরিচিত।
কেবল প্রকৃতি নয়, এ দেশে ছবি তুলে ফিরে যাওয়ার পর তিনি উল্লেখ করেছেন এ দেশের মানুষ বন্ধুবৎসল, নিজে থেকে এগিয়ে এসে আলাপ করতে চায় এবং অবধারিতভাবে একটি প্রশ্ন তারা করবেইÑ বাংলাদেশে এসে তোমার কেমন লাগছে?
বাংলাদেশ থেকে ফিরে যাওয়ার পর তিনি তিনটি কাজ করেছেন। এক. এখানে তোলা ছবিগুলো তিনি নিজের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছেন। তার ওয়েবসাইটি ফটোগ্রাফি বিষয়ে সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং প্রয়োজনীয় তথ্যবহুল একটি সাইট। এর নাম হলো লুমিনাস ল্যান্ডস্কেপ। ওয়েব ঠিকানা হলো http://www.luminous-landscape.com|
বিশ্বখ্যাত পিসি ম্যাগাজিন নিয়মিতভাবে তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ে বিভিন্ন ধরনের জরিপ চালায়। তাদের একটি জরিপ অনুসারে লুমিনাস ল্যান্ডস্কেপ বিশ্বের সবচেয়ে উপকারী ১০১টি সাইটের অন্যতম।
এখানে কেবল ফটোগ্রাফি নয়, এ বিষয়ে টেকনিকাল জার্নাল একটি বড় আকর্ষণ। পাশাপাশি রয়েছে সব ধরনের ডিজিটাল ক্যামেরার ফিল্ড রিপোর্ট ও রিভিউ। এমন একটি সাইটে বাংলাদেশ বিষয়ে তার আর্টিকেল এবং অনলাইন ফটো গ্যালারি আমাদের জন্য একটি প্লাস পয়েন্টÑ সন্দেহ নেই। যারা আগ্রহী তারা লুমিনাস সাইটে গিয়ে এসে (Essays) লিংকে ক্লিক করে বাংলাদেশ বিষয়ক রচনাগুলো পড়ে দেখতে পারেন। পাশাপাশি বাংলাদেশ বিষয়ে অন্য যে ছবিগুলো স্থানাভাবে ছাপা সম্ভব হলো না, দেখে নিতে পারেন সেগুলোও।
তার দ্বিতীয় কাজটি হলো কানাডার টরন্টোতে তিনি বাংলাদেশে তোলা সবচেয়ে ভালো ৭৫টি ছবি নিয়ে একটি প্রদর্শনী করেন। এটি একটি শহরের স্থানীয় প্রদর্শনী হলেও তা ওই শহরে বাংলাদেশের একটি পজিটিভ পরিচিতি তুলে ধরেছে। ছবি বিক্রিও হয়েছে যথেষ্ট।
তার তৃতীয় কাজটি হলো বাংলাদেশে তোলা ছবিগুলো নিয়ে তিনি একটি ফটোগ্রাফির বই প্রকাশ করেছেন। বইটির নাম বাংলাদেশ : ফার্স্ট ইমপ্রেশনস। এতে একজন বিদেশির চোখে বাংলাদেশের প্রকৃতি ঠিক যেভাবে ধরা দেয় সেটিই তিনি তুলে ধরেছেন।
ভিন্ন অর্থে বলা যায়, বইটি তাদের আকর্ষণ করবে যারা এখনো বাংলাদেশে আসেননি।
আজকের ক্যামেরা অ্যান্ড ফটোগ্রাফি পাতায় ছাপানোর আগে আমরা তাকে ই-মেইল করি তার ছবি আমরা ছাপতে পারবো কি না। মাত্র কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তিনি উত্তর পাঠান, নো প্রবলেম, ইউ গট মাই পারমিশন।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: